হৃদপিন্ডে হঠাৎ আক্রমণ | Heart Attack in Bengali

Dr Priya Sharma

Dr Priya Sharma

BDS (Bachelor of Dental Surgery), 6 years of experience

নভেম্বর 18, 2020 Heart Diseases 1597 Views

English हिन्दी Bengali العربية

হার্ট অ্যাটাকের অর্থ কী? (Meaning of Heart Attack in Bengali)

এমন একটি অবস্থা যেখানে হৃদপিন্ডে রক্ত ​​প্রবাহ হঠাৎ বন্ধ হয়ে যায় তাকে হার্ট অ্যাটাক বা মায়োকার্ডিয়াল ইনফার্কশন বলা হয়। হার্ট অ্যাটাক হার্টের পেশীর স্থায়ী ক্ষতি করতে পারে।

সমস্ত কোষ এবং অঙ্গের শরীরের নির্দিষ্ট কাজ রয়েছে। হৃদয় আমাদের শরীরের প্রধান অঙ্গ; অতএব, এটি স্বাস্থ্যকর রাখা অপরিহার্য। এটি সারা শরীরে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্ত ​​পাম্প করার কাজ করে। যদি হার্টে রক্ত ​​সরবরাহকারী ধমনীগুলি সংকীর্ণ বা অবরুদ্ধ হয়ে যায়, তাহলে এটি হার্ট অ্যাটাক হতে পারে।

শুধু ভারতে, প্রতি ৫ সেকেন্ডে একজন মানুষ হার্ট অ্যাটাকের কারণে মারা যায়। গত এক বছরের মধ্যে অনেকেই হার্ট অ্যাটাকের শিকার হয়েছেন।

আসুন আজকের প্রবন্ধে হার্ট অ্যাটাক সম্পর্কে বিস্তারিত বলি।

  • হার্ট অ্যাটাক কি? (What is a Heart Attack in Bengali)
  • হার্ট অ্যাটাকের কারণ কি? (What are the causes of Heart Attacks in Bengali)
  • হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকির কারণগুলি কী কী? (What are the risk factors of a Heart attack in Bengali)
  • হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ কি? (What are the symptoms of Heart Attack in Bengali)
  • হার্ট অ্যাটাক কিভাবে নির্ণয় করা যায়? (How to diagnose a Heart Attack in Bengali)
  • হার্ট অ্যাটাকের চিকিৎসা কি? (What are the treatments for Heart Attacks in Bengali)
  • হার্ট অ্যাটাকের জটিলতা কি? (What are the complications of  Heart Attack in Bengali)
  • হার্ট অ্যাটাক কিভাবে প্রতিরোধ করবেন? (How to prevent Heart Attack in Bengali)

হার্ট অ্যাটাক কি? (What is a Heart Attack in Bengali)

হার্ট অ্যাটাক হার্টের একটি রোগ। এটি হৃদযন্ত্রে রক্ত সরবরাহকারী ধমনীতে বাধা দেওয়ার কারণে ঘটে। রক্ত সরবরাহের এই অভাবের কারণে, হার্টের কিছু অংশ কাজ করা বন্ধ করে দেয়, যার ফলে হার্ট অ্যাটাক হয়। হার্ট অ্যাটাক একটি মারাত্মক রোগ যার ফলে মৃত্যু হতে পারে।

হার্ট অ্যাটাকের কারণ কি? (What are the causes of Heart Attacks in Bengali)

  • করোনারি আর্টারি ডিজিজ: এই অবস্থায় একজনের হার্ট অ্যাটাক হতে পারে এক বা একাধিক করোনারি ধমনীর (ধমনী যা হার্টে রক্ত সরবরাহ করে) ক্ষতির কারণে।
  • এথেরোস্ক্লেরোসিস: রক্তে কোলেস্টেরল এবং অন্যান্য চর্বিযুক্ত পদার্থের উচ্চ মাত্রা এথেরোস্ক্লেরোসিস নামে পরিচিত প্লেক তৈরির মাধ্যমে ধমনীকে সংকীর্ণ করতে পারে। এর ফলে রক্ত জমাট বাঁধার সৃষ্টি হয়। যদি এই জমাট বড় হয়, একজন ব্যক্তির হার্ট অ্যাটাক হতে পারে।
  • করোনারি আর্টারি ফেটে যাওয়া – করোনারি আর্টারি ফেটে যাওয়ার কারণে হার্ট অ্যাটাক হতে পারে। এই অবস্থাটি স্বত:স্ফূর্ত করোনারি আর্টারি ডিসেকশন (এসসিএডি) নামে পরিচিত। SCAD হার্টে রক্ত প্রবাহের অভাব বা ধীরতার দিকে পরিচালিত করে যা হার্ট অ্যাটাকের কারণ হতে পারে।
  • করোনারি আর্টারির স্প্যাম- এটি এমন একটি অবস্থা যেখানে হৃদযন্ত্রে রক্ত সরবরাহকারী রক্তনালীর দেয়ালের পেশী শক্ত হয়ে যায়। এটি হার্টের পেশীতে রক্ত সরবরাহ কমিয়ে দেয় বা বন্ধ করে দেয়, যার ফলে হার্ট অ্যাটাক হয়। 

হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকির কারণগুলি কী কী? (What are the risk factors of a Heart attack in Bengali)

হার্ট অ্যাটাক হতে পারে এমন ঝুঁকির কারণগুলির মধ্যে রয়েছে:

  • বয়স: 45 বছরের বেশি বয়সী পুরুষ এবং 55 বছরের বেশি বয়সী মহিলাদের কম বয়সী পুরুষ ও মহিলাদের তুলনায় হার্ট অ্যাটাক হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।
  • ধূমপান: ধূমপান এবং তামাক সেবন হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়।
  • ডায়াবেটিস: যখন পর্যাপ্ত পরিমাণে ইনসুলিন (অগ্ন্যাশয় দ্বারা নি:সৃত হরমোন) শরীর দ্বারা উৎপাদিত হয় না বা শরীর ইনসুলিনকে ভালভাবে সাড়া দেয় না, তখন এটি শরীরের রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়ায়, যার ফলে  যায় হার্ট অ্যাটাক  হওয়ার ঝুঁকি` বেড়ে যায়। (বিস্তারিত জানুন- ডায়াবেটিস কি? ডায়াবেটিস কত প্রকার?)
  • উচ্চ রক্তচাপ: উচ্চ রক্তচাপ হৃদযন্ত্রের ধমনীগুলির ক্ষতি করতে পারে যার ফলে হার্ট অ্যাটাক হয়। (বিস্তারিত জানুন- উচ্চ রক্তচাপ কী?)
  • উচ্চ ট্রাইগ্লিসারাইড বা রক্তের কোলেস্টেরলের মাত্রা: নিম্ন-ঘনত্বের লিপোপ্রোটিন (এলডিএল) কোলেস্টেরলের উচ্চ মাত্রা বা খারাপ কোলেস্টেরল ধমনী সংকীর্ণ হয়ে হার্ট অ্যাটাকের কারণ হয়। উচ্চ মাত্রার ট্রাইগ্লিসারাইডস (এক ধরনের রক্তের চর্বি যা খাদ্যের সাথে সম্পর্কিত) এছাড়াও এটি হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা বাড়ায়। (বিস্তারিত জানুন- কোলেস্টেরল কী?)
  • স্থূলতা: স্থূলতা হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা বাড়ায়। (বিস্তারিত জানুন- বাচ্চাদের স্থূলতা কী বাড়ায়?)
  • মেটাবলিক সিনড্রোম: এটি এমন একটি অবস্থা যা যখন একজন ব্যক্তির উচ্চ রক্তচাপ, উচ্চ রক্তে শর্করার এবং স্থূলতা থাকে। এই সিন্ড্রোম হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা বাড়ায়।
  • পারিবারিক ইতিহাস: হার্ট অ্যাটাকের একটি পারিবারিক ইতিহাস ব্যক্তির হার্ট অ্যাটাকের উচ্চ ঝুঁকি নির্দেশ করে।
  • স্ট্রেস: উচ্চ মাত্রার স্ট্রেস হার্ট অ্যাটাক হতে পারে।
  • ব্যায়ামের অভাব: নিষ্ক্রিয়তা হার্ট অ্যাটাকের কারণ হতে পারে।
  • অবৈধ মাদকদ্রব্য ব্যবহার: কোকেইনের মতো ওষুধের ব্যবহার করোনারি ধমনীর একটি স্প্যাম হতে পারে যা হার্ট অ্যাটাকের কারণ হতে পারে।
  • অটোইমিউন রোগ: অটোইমিউন অবস্থা (যখন শরীরের ইমিউন সিস্টেম তার নিজের টিস্যুতে আক্রমণ করে) যেমন লুপাস বা রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস (শরীরের ইমিউন সিস্টেম জয়েন্ট এবং অন্যান্য অভ্যন্তরীণ অঙ্গকে আক্রমণ করে) হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলতে পারে।
  • প্রিক্ল্যাম্পসিয়ার ইতিহাস: গর্ভাবস্থায় যে জটিলতা দেখা দেয় তাকে প্রিক্ল্যাম্পসিয়া বলে। এই অবস্থা হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বাড়ায়।

হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ কি? (What are the symptoms of Heart Attack in Bengali)

হার্ট অ্যাটাক কিভাবে নির্ণয় করা যায়? (How to diagnose a Heart Attack in Bengali)

ডাক্তার প্রথমে রোগীর লক্ষণের উপর ভিত্তি করে তার শারীরিক পরীক্ষা করবেন এবং রোগ নির্ণয়ের জন্য রোগীর বয়স, স্বাস্থ্য, চিকিৎসা ইতিহাস এবং পারিবারিক ইতিহাস বিবেচনা করবেন।

হার্ট অ্যাটাকের রোগ নির্ণয় নিশ্চিত করতে নিম্নলিখিত পরীক্ষাগুলি করা যেতে পারে:

  • এক্স-রে, সিটি স্ক্যান, ইকোকার্ডিওগ্রাম: এগুলি হৃদরোগ নির্ণয়ের জন্য হার্ট সহ শরীরের অভ্যন্তরীণ অঙ্গগুলি দেখার জন্য করা ইমেজিং পরীক্ষা।
  • ইলেক্ট্রোকার্ডিওগ্রাফি: এটি হৃদযন্ত্রের বৈদ্যুতিক কার্যকলাপ পরিমাপ করার জন্য করা হয়।
  • রক্ত পরীক্ষা: হার্ট অ্যাটাক হয়েছে কিনা তা নিশ্চিত করতে রক্ত পরীক্ষা করা হয়।
  • কার্ডিয়াক ক্যাথেটারাইজেশন: এই পদ্ধতি ব্যবহার করে হার্টের ভেতরের অংশ পরীক্ষা করা হয়।

হার্ট অ্যাটাকের চিকিৎসা কি? (What are the treatments for Heart Attacks in Bengali)

হার্ট অ্যাটাকের চিকিৎসা রোগীর লক্ষণের উপর নির্ভর করে ডাক্তার দ্বারা নির্ধারিত হয়।

ওষুধ:

  • যদি রোগীর লক্ষণগুলি হালকা হয়, ডাক্তার রক্ত ​​জমাট বাঁধা, প্লেটলেট জমা হওয়া এবং প্লেকে আটকে যাওয়া, প্লেক স্থিরকরণ এবং ইসকেমিয়া প্রতিরোধের জন্য কিছু ওষুধ দিতে পারে (যখন হৃদয় পর্যাপ্ত রক্ত ​​পায় না) আর
  • হৃদযন্ত্রের পেশীর ক্ষতি কমাতে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ওষুধ দেওয়া উচিত।
  • কিছু ঔষধ যা দেওয়া যেতে পারে তার মধ্যে রয়েছে থ্রম্বোলাইটিক (ঔষধ (ধমনীগুলিকে ব্লক করে এমন জমাট বাঁধতে), অ্যাসপিরিন, হেপারিন এবং অন্যান্য অ্যান্টিপ্লেলেট ওষুধ।

ইন্টারভেনশনাল পদ্ধতি:

  • যদি রোগীর লক্ষণগুলি মাত্র 12 ঘন্টা স্থায়ী হয়, ডাক্তার পিসিআই (পারকুটেনিয়াস করোনারি ইন্টারভেনশন) বা করোনারি এঞ্জিওপ্লাস্টি এবং স্টেন্ট বসানো করতে পারেন। এটি বন্ধ বা সংকীর্ণ ধমনীগুলি খোলার জন্য করা হয়।
  • এই পদ্ধতিগুলি থ্রোম্বোলাইটিক থেরাপির (থ্রম্বোলাইটিক ওষুধ) সঙ্গে মিলিত হতে পারে।

করোনারি আর্টারি বাইপাস সার্জারি

হার্ট অ্যাটাকের জটিলতা কি? (What are the complications of  Heart Attack in Bengali)

হার্ট অ্যাটাকের পর কিছু জটিলতা দেখা যেতে পারে। কিছু জটিলতা হল:

  • অ্যারিথমিয়া: এমন একটি অবস্থা যেখানে হৃদস্পন্দন অনিয়মিত।
  • বিষণ্নতা 
  • এডিমা: পা এবং গোড়ালিতে তরল জমে এবং ফুলে যাওয়ার অবস্থা।
  • এনজিনা: হৃদয়ে অপর্যাপ্ত অক্সিজেন সরবরাহের ফলে বুকে ব্যথা হয় তাকে এনজিনা বলে।
  • অ্যানিউরিজম: এটি এমন একটি অবস্থা যেখানে রক্তনালীর দেয়ালের দুর্বল অংশ বেলুন উপরে উঠে যায় এবং রক্তচাপ বৃদ্ধির কারণে ফুলে যায়। এটি মারাত্মক বলে মনে করা হয় যদি এটি ফেটে যায়, যার ফলে স্ট্রোক বা ব্যাপক রক্তক্ষরণ এবং মৃত্যু ঘটে।
  • হার্ট ফেইলুর: হৃদপিণ্ড সঠিকভাবে রক্ত পাম্প করতে অক্ষম, যার ফলে শ্বাসকষ্ট, ক্লান্তি এবং শোথ দেখা দেয়।
  • মায়োকার্ডিয়াল ফেটে যাওয়া: হার্ট অ্যাটাকের কারণে ক্ষতির কারণে হার্টের একটি অংশে ফেটে যাওয়াকে মায়োকার্ডিয়াল রুপচার বলে।

হার্ট অ্যাটাক কিভাবে প্রতিরোধ করবেন? (How to prevent Heart Attack in Bengali)

নিম্নলিখিত সতর্কতা অবলম্বন করে হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধ করা যেতে পারে:

  • ধুমপান ত্যাগ কর
  • মাছ, পনির, সয়াবিন, তাজা শাকসবজি, কমলা, ডালিম, আঙ্গুর, বেরি, আখরোট, বাদাম, চিনাবাদাম, জলপাই তেল, উদ্ভিজ্জ তেল, ক্যানোলা তেল, গমের আটা, সবুজ চা ইত্যাদি সহ একটি সুষম এবং স্বাস্থ্যকর খাবার খান। (সবুজ সবজির উপকারিতা সম্পর্কে আরও জানুন)
  • ভাজা সবজি, ভাজা মাংস, কোমল পানীয়, উচ্চ লবণযুক্ত খাবার, মিষ্টি আইটেম, সাদা ভাত ইত্যাদি খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।  (সম্পর্কে আরও জানুন- সবুজ শাকসবজির উপকারিতা)
  • নিয়মিত ব্যায়াম।
  • অ্যালকোহল সেবন সীমিত।
  • সুস্থ শরীরের ওজন বজায় রাখা।
  • চাপ এড়ানো।
  • উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস এবং উচ্চ কোলেস্টেরলের মাত্রা ব্যবস্থাপনা।

আমরা আশা করি আমরা এই নিবন্ধের মাধ্যমে হার্ট অ্যাটাক সম্পর্কে আপনার সমস্ত প্রশ্নের উত্তর দিয়েছি।

আপনি যদি হার্ট অ্যাটাক এবং এর চিকিৎসা সম্পর্কে আরও তথ্য পেতে চান, তাহলে অবিলম্বে একজন Cardiologist সাথে যোগাযোগ করুন।

আমাদের লক্ষ্য শুধু এই নিবন্ধের মাধ্যমে আপনাকে তথ্য দেওয়া এবং কোনোভাবেই ওষুধ বা চিকিৎসার সুপারিশ করা নয়। কেবলমাত্র একজন ডাক্তারই আপনাকে ভাল পরামর্শ এবং সঠিক চিকিৎসা পরিকল্পনা দিতে পারে।

Over 1 Million Users Visit Us Monthly

Join our email list to get the exclusive unpublished health content right in your inbox